কুমিল্লায় ইভটিজিং এ ভাতিজার বাধা প্রতিপক্ষের হামলায় চাচার মৃত্যু

শাকিল মোল্লা, কুমিল্লা প্রতিনিধি:
কুমিল্লা নগরীর সংরাইশে নারীকে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের হামলায় আবদুল মতিন (৬০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। আহত অবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে সোমবার সকালে তার মৃত্যু হয়। নিহত আবদুল মতিন ওই এলাকার মৃত মনা মিয়ার ছেলে। তিনি কুমিল্লার চকবাজারে চালের আড়তের ব্যবসায়ী ছিলেন।

এর আগে রবিবার সন্ধ্যায় নগরীর সংরাইশ শিশু উদ্যান এলাকায় ইভটিজিং সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় মতিনের ছেলে এবং ভাতিজাসহ দুইপক্ষের ৪/৫ ব্যক্তি আহত হয়েছে।

স্থানী বাসিন্দা জানান, আলা মিন নামে এক ব্যক্তির নেতৃত্বে এই হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আলামিন সংরাইশ এলাকার ইদু মিয়ার ছেলে।

প্রতিপক্ষের হামলায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক ব্যক্তি মারা গিয়েছে নিশ্চিত করে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আনারুল হক জানান, হামলার পর আহত অবস্থায় আবদুল মতিনকে ঢাকার একটি হাসপাতালে নেয়া হলে সকালে তার মৃত্যু হয়। লাশ বর্তমানে ঢাকায় আছে। হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে হৃদয় (২৫) নামে এক তরুণকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হামলার শিকার ব্যক্তিদের অভিযোগ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর আলম বাবুল জানান, নারী সংক্রান্ত বিষয়ে প্রথমে নিহত মতিনের ভাতিজা অভিযুক্ত আলামিনের বন্ধুকে বাধা দেয়।

বাধা দেওয়া ঘটনার সূত্র ধরে আলামিন ও তার সহযোগিরা মতিনের বাড়িতে হামলা ও মারধর করে। হামলায় মতিন, তার ছেলে এবং বাতিজা আহত হয়। গুরুতর অবস্থায় মতিনকে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: