প্রচলিত এন্টিবায়োটিক কাজ করছে না!!!

অনেক দিন পূর্বে কোন একটি পত্রিকায় পড়েছিলাম, “বর্তমানে প্রচলিত এন্টিবায়োটিকগুলো সঠিকভাবে কাজ করছেনাচ্। উক্ত লেখাটি ভালভাবে পড়ার পর নিজের মনে অজান্তেই সে সময়ে কিছু প্রশ্ন উঁকি
দিয়েছিল।

১) সাধারণ জ্বরে কেন ডাক্তাররা এজিথ্রোমাইসিন গ্রুপের ঔষধ প্রেসক্রাইব করে?
২) তাহলে কি বর্তমানে প্রচলিত ঔষধ(এন্টিবায়োটিক) অকার্যকর?
আরো অনেক প্রশ্ন হয়তো মনে জেগেছিল। কিন্তু সদুত্তর খুঁজে পাইনি। বর্তমানে বিশ্বে মহামারী আকারে একটি ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। ভাইরাসটি আকার ও বৈশিষ্ট্য অনেকটাই বিজ্ঞানীদের কাছে স্পষ্ট। এ প্রজাতির কিছু ভাইরাসের ঔষধ এর পূর্বে অনেক দেশ অবিষ্কার করেছে। কিন্তু কোভিড-১৯ এর ঔষধ আবিষ্কারে বিজ্ঞানরীর এখনো ব্যর্থ।

যদি যুক্তরাষ্ট্রকে কিংবা রাশিয়াকে বলা হয় তোমারা একটি দেশকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ধ্বংশ করে ফেল
সেটা তাদের জন্য কোন ব্যাপারই না; তাহলে এ ভাইরাসটি তারা কেন পরাজিত করতে পারছেনা?
এ প্রশ্নটি যত সহজ কিন্তু উত্তরটি অত সহজ নয়। বিগত দশকগুলোতে বিশ্বের উন্নত দেশগুলো তাদের
সামরিক বাজেট বাড়িয়েই চলেছে। এমনকি উন্নয়নশীল দেশগুলোকেও তারা বাধ্য করছে এ ধরণের বাজেট বাড়াতে (পরোক্ষভাবে)। এর ফলে মানুষের কল্যাণের পরিবর্তে অকল্যাণের দিকগুলিই বেশি আয়ত্ত্ব করা সম্ভব হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র যত টাকা এন্টিবায়োটিক উন্নয়নের কাজে ব্যয় করে তার থেকে অনেক বেশি টাকা ইরাককে ধ্বংশ করার কাজে ব্যবহার করেছে। রাশিয়া যত টাকা বিশ্বের মানুষের কল্যাণে ব্যবহার করেছে তার থেকে অনেক বেশি টাকা ব্যয় করছে যুক্তরাষ্ট্রকে টেক্কা দিতে। পারমাণবিক অস্ত্র, নিঁখুত মিসাইল, রাডার, উন্নত যুদ্ধবিমান ইত্যাদি তৈরীতেই তারা ব্যস্ত। মানব সভ্যতা গোল্লায় যাক তাদের দরকার ক্ষমতা। ক্ষমতার জোরে তারা সকল দেশকে পদাবনত করে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

একদিকে যুক্তরাষ্ট্রীয় বলয় অন্যদিকে রাশিয়া বলয়। বর্তমানে আবার চীন মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তাদের একটি বলয় তৈরী করতে। হয়তো ভাইরাসটি চীনের জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে এ ধরণের একটি বলয় তৈরী করতে। তারা বিভিন্নভাবে বিশ্বকে সাহায্য করে যাচ্ছে। যেমন-বিনামূল্যে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও ঔষধ সহায়তার মাধ্যমে। কিন্তু লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে কিছুদিন পূর্বেও তাদের জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় মাস্ক দিতে পারছিলনা। যাই হোক তারা সহায়তা করছে বর্তমানে আমরা এটিকেই গুরুত্ব সহকারে দেখছি।

এবার দক্ষিণ এশিয়ার দিকে লক্ষ্য করা যাক, দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত তার চিকি সা ব্যবস্থার কিছুটা হলেও
উন্নতি লাভ করেছে। কিন্তু উন্নত বিশ্ব ভারত এবং পাকিস্তানকে মুখোমুখি এমনভাবে দাঁড় করিয়ে রেখে যে,তারা ইচ্ছে করলেও সামরিক বাজেট কমিয়ে মানব কল্যাণে ব্যয় করতে পারবনা। ভারতে পক্ষে দাঁড়িয়েছে পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্র অপরদিক পাকিস্তানের আছে পরম বন্ধু চীন। এভাবে দুই দেশকেই বাধ্য করছে সামরিক ব্যয় বাড়াতে। আর এভাবেই আমরা অস্ত্রের ভান্ডার বৃদ্ধির প্রতিযোগিতায় ব্যস্ত হয়ে আছি।

এ ব্যস্তার ফাঁকে কোভিড-১৯ মহাশয় তার শক্তি বাড়িয়ে মানব সভ্যতার দিকে হামলা চালিয়ে দেখছে যে, আমরা কতটা প্রস্তুত। কিন্তু কোথায় প্রস্তুতি? মনের সুখে কোভিড-১৯ তার ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে বেড়াচ্ছে। আমরা হা করে পারমাণবিক অস্ত্রের দিকে তাকিয়ে আছি! আমরা হা করে অত্যাধুনিক সুখোই বিমানের দিকে তাকিয়ে আছি! আমরা অত্যাধুনিক মিসাইলের দিকে তাকিয়ে আছি কিন্তু মুক্তি কতদূর? আমরা নিজেরাই নিজেদের বিপদ ডেকে এনেছি এখননিজেরদেরকেই সেটা ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে হবে। কিন্তু আমাদের হাতে পূর্বে থেকে সে ধরণের কোন ঝান্ডা নেই, আমরা সে ধরণের ঝান্ডা তৈরী করে রাখিনি।

বিজ্ঞান যখন জানতে পারলেন যে, বর্তমান এন্টিবায়োটিক শতভাগ কাজ করছেনা। সাধারণ জ্বরে নাপার পরিবর্তে এজিথ্রোমাইসিন ব্যবহার করতে হয় তখন তারা কেন নতুন এন্টিবায়োটিক তৈরী করতে উন্নত বিশ্বকে চাপ দিলোনা? চাপ দিয়েই বা লাভ কি তারা তো পারমাণবিক গবেষণা নিয়ে ব্যস্ত, তারা তো মহাকাশ গবেষণা নিয়ে ব্যস্ত।

আজকে যদি যুক্তরাষ্ট্র ষোঘণা দেয় যে, তারা একটি নতুন মিসাইল আবিষ্কার করেছে এবং এটি
পূর্বের থেকে অনেক বেশি শক্তি নিয়ে শত্রুর উপর (মানুষ) নিঁখুত হামলা করতে সক্ষম। আমার মনে হয় আগামী ৩০ দিনের মধ্যে রাশিয়া ঘোষণা দিবে যে তারা এর থেকেও উন্নত মিসাইল আবিষ্কার করেছে। তাহলে কোভিড-১৯ এর কাছে হেরে যাচেছন কেন? নাকি বিশ্বের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পরীক্ষা নিচ্ছেন? তারা কতক্ষণ সহ্য করতে পারে, কতক্ষণ বেঁচে থাকতে পারে কিন্তু এত ধৈর্য্য আর আমাদের নেই। আমরা ক্ষুধায় আজ নিরুপায়, স্বজন হারানোর ব্যথায় আজ পাগলপ্রায় তাই সাধারণ জনগণের পক্ষ থেকে আমার আকুল আবেদন পারমাণবিক গবেষণা বন্ধ করে উন্নত এন্টিবায়োটিক তৈরীতে আপনারা মনোনিবেশ করুন। এতে আপনাদের তথা
সারা বিশ্বের মঙ্গল সাধিত হবে।

—–লাভ লস

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: