শেয়ারবাজারও বন্ধ হচ্ছে

অনলাইন ডেস্ক:

করোনার পাদুর্ভাব এড়াতে আগামী সপ্তাহ শেয়ারবাজার পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। পুনরায় লেনদেন শুরু হবে ৫ এপ্রিল থেকে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তবে এ সময়ের মধ্যেও পরিস্থিতির উন্নতি না হলে সরকারের সিদ্ধান্ত জেনে লেনদেন চালুর বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বুধবার স্বাভাবিক লেনদেন হবে। তবে পূর্ব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সকাল সাড়ে ১০টায় লেনদেন শুরু হয়ে শেষ হবে দুপুর দেড়টায়।বৃহস্পতিবার থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত শেয়ারবাজার বন্ধ থাকবে।

করোনা আতঙ্কে শেয়ারবাজারে ব্যাপক দরপতন শুরু হলে গত বৃহস্পতিবার থেকে প্রতিদিনের লেনদেন সময়সীমা চার ঘণ্টা থেকে কমিয়ে তিন ঘণ্টায় নামিয়ে আনা হয়।

দেশের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলার অংশ হিসেবে সরকার ২৬ মার্চ ২০২০ থেকে ৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখ পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে৷

সরকারের এই সিদ্ধান্তের সাথে সংগতি রেখে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই ও সিএসই) ৪ এপ্রিল পর্যন্ত শেয়ার কেনাবেচা, শেয়ার লেনদেন নিষ্পত্তিসহ সকল প্রকার দাপ্তরিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে৷

করোনোর কারণে শেয়ার লেনদেন চার ঘণ্টার পরিবর্তে তিন ঘণ্টায় নামিয়ে আনা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে তা কার্যকর করা হয়।কিন্তু পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার প্রেক্ষাপটে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লেনদেন বন্ধ রাখার দাবি করে আসছিলেন বিনিয়োগকারী ও বাজার সংশ্লিষ্টরা।

এ অবস্থায় গত মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের ডিএসইর মোবাইল অ্যাপ বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কেনাবেচা করার আহ্বান জানিয়েছিল ডিএসই।

মঙ্গলবার শেয়ারবাজারে ক্রেতা সংকটের মধ্য দিয়ে শেয়ারবাজারের লেনদেন শেষ হয়েছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থার বেধে দেওয়া সর্বনিম্ন দরে (ফ্লোর প্রাইস) কেনাবেচা হয়েছে সিংহভাগ শেয়ার।

এদিন দেশের প্রধান এ শেয়ারবাজারে ৩৫২ কোম্পানির শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। এর মধ্যে মাত্র ২৫টির বাজারদর বেড়েছে, কমেছে ৮৫টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৪২টির দর।

বেশিরভাগ শেয়ার দর হারানোয় ডিএসইএক্স সূচক ৮ পয়েন্ট হারিয়ে ৩৯৭৬ পয়েন্টে নেমেছে। দিনব্যাপী কেনাবেচা হওয়া সব শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের বাজার মূল্য ছিল ১৩৯ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

সিএসইতে কেনাবেচা হওয়া ১৬২ শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ২২টির দর বেড়েছে, কমেছে ৩৭টির এবং অপরিবর্তিত থেকেছে ১০৩টির দর। এ বাজারের প্রধান সূচক সিএসসিএক্স ১৪ পয়েন্ট হারিয়ে ৬৮১৩ পয়েন্টে নেমেছে। লেনদেন হওয়া শেয়ারের বাজার মূল্য ছিল ৮ কোটি ১৯ লাখ টাকা।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: