স্বেচ্ছাসেবীর মাধ্যমে খাদ্যহীন পরিবার খুঁজে ঘরে ঘরে খাবার পৌছে দিচ্ছেন আনোয়ার হোসেন

মোঃ জনি পারভেজ (নাটোর গুরুদাসপুর) প্রতিনিধি:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গিকার করোনা ভাইরাসে একজন মানুষও না খেয়ে মরবেনা”-এই শ্লোগান বাস্তবায়নে ব্যাক্তি উদ্যোগে গ্রামের কর্মহীন মানুষের পাশে খাদ্য সহায়তা নিয়ে বাড়ি বাড়ি ছুঁটছেন নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন।

তার নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের মাধ্যমে প্রাপ্ততথ্য নিশ্চত হয়ে প্রকৃত কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবার বাছাই শেষে রাতেই খাদ্য সহায়তা পৌছে দিচ্ছেন তিনি। গত ২৯ মার্চ রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টা থেকে তিনি ওই কার্যক্রম শুরু করে গুরুদাসপুর পৌরসভার গাড়িষাপাড়া,মশিন্দা ও ধারাবারিষা ইউনিয়নের একাংশের অন্তত ৫০টি পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা বিলি করেন। এসময় প্রতিটি পরিবারের মাঝে ১০ কেজি চাল,আলু,ডাল ও সাবান বিতরন করা হয়।

প্রানঘাতি করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি ও গ্রামের অসহায়,হতদরিদ্র,খাদ্যহীন মানুষকে খাদ্যসামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন তিনি। প্রকৃত খাদ্যহীন পরিবার বাছাই করতে তিনি উপজেলাব্যাপী প্রতিটি ইউনিয়নের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে ৭ জন করে মোট ৪৪১ জন স্বেচ্ছাসেবী নিযুক্ত করেছেন। যারা স্বেচ্ছাপ্রনোদিত হয়ে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষকে সচেতন করতে কাজ করে যাচ্ছে। একইসাথে তারা ওয়ার্ডের প্রতিটি গ্রামের কর্মহীন হতদরিদ্র পরিবার খুজে বের করবে। তারা সবাই আনোয়ার হোসেনের একটি “করোনা সচেতনতা ও খাদ্য সহায়তা” নামক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ম্যাসেঞ্জার পেইজে যুক্ত রয়েছেন।

স্বেচ্ছাসেবীরা প্রথমে ওই পেইজে খাদ্যহীনদের নাম ঠিকানা প্রেরন করেন। তাদের তালিকা যাচাই বাছাইয়ের জন্য আরও একটি সংক্ষিপ্ত সেচ্ছাসেবী কমিটি রয়েছে। তারা নিরিড় অনুসন্ধান করে প্রকৃত তালিকা তৈরী করলে আনোয়ার হোসেন নির্বাচিতদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসহায়তা পৌছে দিচ্ছেন। সমস্ত বিষয় তদারকি করছেন উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন নিজেই।

তিনি জানান,সরকারী দায়িত্ব পালনের পাশাপশি ব্যাক্তিগতভাবে মনে করেছি উপজেলার কেন্দ্র থেকে গ্রামের সাধারন মানুষ পর্যন্ত করোনা ভাইরাস সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার প্রক্রিয়া যথেষ্ট নয়। এ কারনে আমি ব্যাক্তি উদ্যোগে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় প্রচারনা চালাতে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটিসহ দুইস্তর বিশিষ্ট সেচ্ছাসেবক নিযুক্ত করেছি।

তারা জনগনকে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে যেমন সচেতন করবে,তেমনি খাদ্যহীন মানুষ খুজে আমাকে জানাবে। আমি তাৎক্ষনিক তাদের বাড়িতে খাদ্য পৌছে দেব। করোনা প্রাদুর্ভাব যতদিন থাকবে ততদিন প্রকৃত খাদ্যহীন মানুষের পাশে থেকে আমি ও আমার স্বেচ্ছাসেবী কমিটি কাজ করবে।

তিনি আরও জানান,যে কেউ আমার সহায়তা তহবিলে অর্থ অথবা খাদ্য সহায়তা প্রদান করতে পারবেন।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: